শিরোনাম
প্রচ্ছদ / কুয়েত / অন্যের দেয়া ‘প্যাকেটে’ এলোমেলো প্রবাসী সাইফুলের জীবন।

অন্যের দেয়া ‘প্যাকেটে’ এলোমেলো প্রবাসী সাইফুলের জীবন।

কুয়েতে মাদক বিক্রেতা হানিফের ফাঁদে পড়ে প্রায় দুই বছর ধরে দেশটির সেন্ট্রাল জেলে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছে চট্টগ্রামের ফারুক হোসেন।

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের করেরহাট ইউনিয়নের (৫ নং ওয়ার্ডের) দক্ষিণ অলিনগরের সুলতান আহম্মদের পুত্র হানিফ। সে কুয়েতে দীর্ঘদিন ধরে গাঁজা, হিরোইন, ইয়াবাসহ বিভিন্ন অবৈধ মাদক বেচাকেনার সঙ্গে জড়িত। সে ৬ থেকে ৭ মাস পরপর ছুটিতে দেশে এসে এসব মাদকদ্রব্য নিয়ে যেত, আবার দেশ থেকে কেউ আসলে কৌশলে তাকে দিয়ে আনাতো। তার এ ফাঁদে পড়ে একই উপজেলার হিঙ্গুলি ইউনিয়নের (৪নং ওয়ার্ডের) জামালপুর গ্রামের ফয়েজ আহম্মদের পুত্র সাইফুল ইসলাম ফারুক।

২০১৫ সালের ২০ মার্চ ফারুক বাড়ি থেকে কুয়েতের উদ্দেশে রওনা হওয়ার আগে হানিফের খালাতো ভাই মোতালেব গরুর মাংস নিয়ে আসে হানিফকে দেয়ার জন্য। প্যাকেটে মাংসের গন্ধ দেখে এবং পার্শ্ববর্তী এলাকার লোক ভেবে সরল মনে না দেখেই ব্যাগটি নেয় সাইফুল। ওই প্যাকেটে মাংসের বদলে ১ কেজি গাঁজা দেয় মোতালেব। বিষয়টি বাংলাদেশের ইমিগ্রেশনে ধরা না পড়লেও কুয়েত ইমিগ্রেশন পুলিশের তল্লাশিতে ঠিকই ধরা পড়ে।

এ ঘটনায় মাদক মামলায় ফারুককে কুয়েতের সেন্ট্রাল জেলে পাঠানো হয়। তার দুই মাস পর হানিফকে মাদক ও চুরির মামলায় আটক করে কুয়েত পুলিশ। সেখানে কয়েক মাস জেল খেটে টাকার মাধ্যমে ওয়াস্তা দিয়ে দেশে চলে আসে হানিফ। বর্তমানে সে এলাকায় পালিয়ে বেড়াচ্ছে।

কুয়েতের আদালতে বিচারাধীন মামলার আইনজীবী তালাল আজি বলেন, হানিফ দেশে চলে যাওয়ায় মামলায় জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। ফলে ফারুকের মুক্তিতে সময় এবং অনেক টাকা লাগবে। এদিকে জেলখানায় বন্দিদশা থেকে ফারুক তার ফেসবুক আইডিতে বিস্তারিত কিছু লেখার সুযোগ না পেলেও শুধু লিখেছে ‘হানিফ আমার জীবনটাকে এলোমেলো করে দিল’।

এদিকে দেশে ফারুকের বৃদ্ধা মা নুরের নাহারের আহাজারি থামছেই না। ছেলের শোকে বাকরুদ্ধ প্রায়। কান্নাজড়িত কণ্ঠে বিলাপ করতে করতে বলেন, ‘সকলের সহযোগিতায় আল্লাহর রহমতে আমার বুকের মানিক যেন আবার ফিরে আসে, আমি ছেলেকে দেই নয়ন ভরে দেখতে চাই’।

তিনি আরও বলেন, ‘নববিবাহিত ফারুকের সংসার যে বিষাদে ভরে দিয়েছে, আল্লাহ যেন সেই হানিফের বিচার করে। ফারুকের মতো এই রকম ভুল যাতে আর কেউ না করে। বিদেশ যাওয়ার সময় কেউ যেন কারও কোনো কিছু চেক ছাড়া ব্যাগে না রাখে। আর যেন আমার মতো কোনো মায়ের বুক কান্নায় ভেসে না যায়’।

প্রবাসীদের সকল ভিডিও খবর ইউটিউবে দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি: