শিরোনাম
প্রচ্ছদ / মালয়েশিয়া / মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি নারী আইনজীবী হত্যার তদন্ত শেষ পর্যায়ে

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি নারী আইনজীবী হত্যার তদন্ত শেষ পর্যায়ে

মালয়েশিয়ায় এক বাংলাদেশি নারী আইনজীবীকে নৃশংসভাবে খুনের ঘটনা নিয়ে তোলপাড় চলছে। সাজেদা-ই-বুলবুল (২৯) নামের ওই আইনজীবীকে হত্যার ঘটনায় দেশটির পুলিশ প্রধান সন্দেহভাজন স্বামী শাহজাদা সাজুকে (৩৭) খুঁজছে। গতকাল তারা সাজুর ছবি প্রকাশ করেছে।

সাজেদা-ই-বুলবুল পটুয়াখালী সদরের পুরাতন আদালতপাড়ায় মো. আনিস হাওলাদারের মেয়ে। তিনি প্রাইম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এল এল বি এবং এল এম পাশ করেন। বিয়ের পর ২০১৬ সালের ৩ ডিসেম্বর স্বামীর সঙ্গে মালেয়েশিয়া যান তিনি।

সেখানে যাওয়ার পর স্বামীর অন্য চেহারা দেখতে পান। শাহজাদা নিজে প্রতিষ্ঠিত হলেও স্ত্রীকে স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ তৈরি করে দেননি। নিয়মিত করতেন নির্যাতন। তারই ধারাবাহিকতায় গত ৫ জুলাই সাজেদাকে নৃশংশ কায়দায় হত্যা করে পাষণ্ড স্বামী শাহজাদা। অপরাধ গোপন করতে স্ত্রীর লাশ টুকরো টুকরো করে কেটে লাগেজে ভরে সুংগাই কালাং (জালান ইপুহ) এলাকায় এক ডোবায় ফেলে গা ঢাকা দেন। দুই লাগেজে ভর্তি সাজেদার আট টুকরা মৃতদেহ প্রথমে দেখতে পান একজন ভবঘুরে ব্যক্তি। তিনি পুলিশে খবর দিলে এই নৃশংস ঘটনাটি সামনে আসে।

পুলিশ প্রধান দাতুক সেরি মাজলান বলেছেন, ‘আমরা এই মুহূর্তে ঘটনার প্রধান আসামীকে খুঁজছি, যিনি আমাদের এই তদন্তে আলো ফেলতে পারবেন। আমাদের তদন্ত বলতে গেলে পুরোপুরি শেষ। এখন শুধু হত্যাকারীকে পাওয়ার অপেক্ষা। আমাদের কাছে তথ্য আছে, সে এখনও মালয়েশিয়া ছেড়ে যায়নি, সম্ভবত সে অন্য কোনো প্রদেশে গিয়ে লুকিয়ে আছে।’

এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় কুয়ালালামপুরে বাংলাদেশ হাইকমিশনের সহযোগিতা চেয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা (আইও) সিআইডির এএসপি ফাইজাল বিন আব্দুল্লাহ। এজন্য তিনি গত ১৭ জুলাই হাইকমিশনার বরাবর সহযোগিতা চেয়ে লিখিত আবেদন করেছেন।

আবেদনে বাংলাদেশে সাজুর পরিবারের মোবাইল নম্বরে (০১৭৩০২৩৩৪২০) মালয়েশিয়া থেকে যারা যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছে তদন্তের স্বার্থে তাদের কললিষ্ট চেয়েছেন তিনি। ওই আবেদনের প্রেক্ষিতে দূতাবাস দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

প্রবাসীদের সকল ভিডিও খবর ইউটিউবে দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি: