শিরোনাম
প্রচ্ছদ / মালয়েশিয়া / শুরুতেই চরম বিপদের মুখোমুখী মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির!

শুরুতেই চরম বিপদের মুখোমুখী মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির!

মন্ত্রিসভার গঠন নিয়ে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের জোটে দ্বন্দ্ব শুরু হয়েছে। তার সঙ্গে কারাবন্দি নেতা আনোয়ার ইব্রাহিমের দলের মতবিরোধ চলছে বলে জানা গেছে। চার দলীয় এই জোটের মধ্যে বিরোধ প্রকাশ্যে এসেছে।

তবে আনোয়ার ইব্রাহিম হাসপাতাল থেকে এক বার্তায় তার দল পিপলস জাস্টিস পার্টির নেতা-কর্মীদের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেছেন, মাহাথিরের সরকার যেন স্থিতিশীল এবং শক্তিশালী হয়। পাশাপাশি এটাও বলেছেন, মাহাথিরের সঙ্গে আলোচনায় তিনি আরো বিস্তৃত সমঝোতার মাধ্যমে মন্ত্রিসভা গঠনের বিষয়ে পিকেআর’র দাবি তুলে ধরেছেন।

মন্ত্রিসভায় অবস্থান নিয়ে মালয়েশিয়ার ক্ষমতাসীন জোটের মধ্যকার টানাপোড়েন কাটানোর চেষ্টা করছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ ও কারাদণ্ড পাওয়া রাজনীতিক আনোয়ার ইব্রাহিম।

মাহাথির মোহাম্মদও বিরোধের কথা স্বীকার করে বলেছেন, সবারই আশা থাকবে। এর সমাধানও হবে। শুরুতেই মন্ত্রিসভার অনুপাত নিয়ে চিন্তা করা উচিত হবে না। আমরা বাকি মন্ত্রিসভা গঠন করার পরে এটা দৃশ্যমান হবে। নিশ্চিতভাবে সেখানে প্রত্যেক দলের চাওয়া-পাওয়া নিয়ে কিছু দ্বন্দ্ব দেখা দেবে। এটা প্রধানমন্ত্রীই নির্ধারণ করবেন।

মাহাথির শনিবার তার মন্ত্রিসভায় তিনজনকে নিয়োগ দিয়েছেন। এদের মধ্যে আনোয়ার ইব্রাহিমের স্ত্রী ওয়ান আজিজাহ ওয়ান ইসমাইলও রয়েছেন। তবে বিষয়টি নিয়ে তিনি জোটের অন্য কারও সঙ্গে কোনও আলোচনা করেননি। তার ১০ জনের নাম ঘোষণা করার কথা ছিল।আনোয়ার ইব্রাহিমের স্ত্রী ওয়ান আজিজাহকে মাহাথির মন্ত্রিসভায় রাখার পরও মতবিরোধের জেরেই তিনি নতুন মন্ত্রিদের নাম ঘোষণার সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন না।

গত ৯ মে বুধবারের নির্বাচনে দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতায় থাকা বারিসন ন্যাসিওনাল সরকারকে হারিয়ে জয়লাভ করে চার দলের নতুন জোট। তবে এত তাড়াতাড়ি জোটটির মধ্যে টানাপোড়েন শুরু হওয়ায় তাদের একতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

মাহাথির ক্ষমতাসীন জোটের নেতা আর আনোয়ার জোটের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে জেতা দল পিকেআর’র নেতা। এই দুজন প্রথমে বন্ধু, তারপর শত্রু ও পরে জোটের মিত্র হয়েছেন। তাদের এমন পরিবর্তনশীল সম্পর্কই গত তিন দশক ধরে মালয়েশিয়ার রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করছে। এমনকি জোটের ভবিষ্যৎও এই দুইজনের সম্পর্কের ওপরই নির্ভর করছে।

এদিকে সদ্য বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের স্বজনদের বাসায় তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র যাতে তিনি সরিয়ে ফেলতে না পারেন সেজন্য এই পদক্ষেপ নিয়েছে পুলিশ। এর আগে শনিবার নিজ দল এবং জোট থেকে পদত্যাগ করেন নাজিব।

গত ৯ মে’র নির্বাচনে পিকেআর ৪৮টি আসনে জয়লাভ করেছে। জোটের অন্য দলগুলোর মধ্যে দ্য ডেমোক্র্যাটিক অ্যাকশন পার্টি- ডিএপি ৪২টি, মাহাথিরের বেরসাতু পার্টি ১২টি ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী মোহাম্মদ সাবুর আমানাহ পার্টি ১১টি আসনে জয়লাভ করেছে।

প্রবাসীদের সকল ভিডিও খবর ইউটিউবে দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি: