শিরোনাম
প্রচ্ছদ / লিবিয়া

লিবিয়া

কারাগারে অন্ধকার কক্ষে দিন-রাত নির্যাতন চলত।

সহায়-সম্পদ বিক্রি করে দালাল ধরে লিবিয়ায় গিয়েছিলেন মাদারীপুরের রুহুল আমিন খান। তবে সেখানে গিয়ে পড়তে হয়েছিল চরম বিপদের মুখে। দালালের প্রতারণায় প্রায় সাত মাস কারাবন্দি থাকতে হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে একবারের জন্যও পেটে ভাত পড়েনি। অন্ধকার কক্ষে রেখে চালানো হতো অমানবিক নির্যাতন। পানি চাইলে প্রস্রাব পানের কথা বলত কারারক্ষীরা। পরিবারের …

বিস্তারিত

সেলিম ও শাহ আলমসহ ১০ জনকে যেকোন সময় জবাই।

তুই আমারে বাঁচা ভাই। ওরা আমাকে মেরে ফেলবে। বলেছে, ৫০ লাখ টাকা পণ দিলে জান ফিরে পাবো। বলতে বলতে ফুঁপিয়ে কাঁদছিলেন সেলিম মিয়া। মোবাইল ফোনে শুধু কান্নার শব্দ। এ পাশে কাঁদতে থাকেন ভাই আরিফুলও। অনেক স্বপ্ন নিয়ে নানা প্রতিকূলতা ডিঙ্গিয়ে তার ভাই সেলিম মিয়া লিবিয়ায় যান। তার মুখ থেকে এরকম …

বিস্তারিত

ভয়াবহ যন্ত্রনার কথা জানালেন লিবিয়ার বন্দিশিবির থেকে উদ্ধার হওয়া ৪৬ বাংলাদেশি।

২০১৪ সালের পর মিসরাতায় চালানো এটিই প্রথম অভিযান। লিবিয়ার বাংলাদেশি দূতাবাস এবং একই শহরের ক্রারিম বন্দিশিবিরের সহায়তায় অভিযান পরিচালিত হয় বলে জানা গেছে । বন্দিশিবিরের গ্লানি টেনে দেশে ফেরা ৪৬ বাংলাদেশী জানিয়েছেন, ভাগ্য ফেরানোর আশায় দালালদের প্রলোভনে স্বল্প খরচে লিবিয়ায় এসেছিলেন তারা। তবে যাত্রা শুরুর আগে ঘুণাক্ষরেও তারা উপলব্ধি করতে …

বিস্তারিত

মালয়েশিয়ার কথা বলে লিবিয়া নিয়ে গিয়ে, টাকার জন্য নির্যাতন!

সুমন যেতে চেয়েছিলেন মালয়েশিয়ায়। কিন্তু বৈধ পাসপোর্টেই দালালরা তাঁকে নিয়ে যায় লিবিয়ায়। সেখানে আটকে রেখে নির্যাতন করে পরিবারের কাছ থেকে মুক্তিপণ বাবদ টাকা আদায় করা হয়। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দালালচক্রের একটি গোষ্ঠীকে ঢাকায় আটক করে এবং লিবিয়ার বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে সুমনকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। সুমনের (৩০) বাড়ি লক্ষ্মীপুর সদর …

বিস্তারিত

লিবিয়ার ডিটেনশন সেন্টারে ৩৭ বাংলাদেশির মানবেতর জীবন।

তারা ৩৭ জন। বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা। কয়েক মাস আগে পাড়ি দিয়েছিলেন যুদ্ধবিধ্বস্ত লিবিয়ায়। লক্ষ্য ছিল- ইউরোপের দেশ ইতালি। এমন প্রলোভনই তাদেরকে দেখিয়েছিল দালালেরা। বলেছিল- ইতালি পৌঁছানোর পরই টাকা হাতে নেবে। সরল বিশ্বাসে এসব কথা বিশ্বাস করে তারা। কিন্তু দেশ ছাড়ার পরই পাল্টে যায় দালালদের চরিত্র। বন্দিশালায় আটকে ফেলে তাদের। …

বিস্তারিত

৪ বাংলাদেশি মানবপাচারকারী গ্রেফতার, ৬৫ কর্মী উদ্ধার।

লিবিয়ায় অবৈধভাবে মানবপাচারকারী চক্রের চার বাংলাদেশিকে গ্রেফতার করেছে দেশটির আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। সেসময় তাদের আস্তানায় ব্যাপক অভিযান চালিয়ে পাচারের শিকার ৬৫ জন বাংলাদেশি কর্মীকে বন্দিদশা থেকে উদ্ধার করা হয়। রোববার লিবিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের ফেসবুক পেজে গ্রেফতারকৃতদের ছবিসহ দেওয়া একটি পোস্টে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। গ্রেফতারকৃত মানবপাচারকারী চক্রের সদস্যরা হলেন-  মূল হোতা …

বিস্তারিত

৩ বাংলাদেশি মানবপাচারকারী আটক।

তিনজন বাংলাদেশি মানবপাচারকারীকে আটক করেছে লিবিয়ার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। তারা দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে দেশটিতে মানবপাচার ও পাচার করা বাংলাদেশিদের আটকে রেখে অর্থ আদায় করে আসছিল বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। লিবিয়ায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল শহীদুল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। আটকরা হলেন, মনির ভাণ্ডারী, ইমরান এবং তাজুল ইসলাম। তাদের ঠিকানা …

বিস্তারিত